খবর রাজনীতি

কয়রায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ কেউই চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হবে না-এমপি বাবু

শাহজাহান সিরাজ, কয়রা।। খুলনার কয়রায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য বিনামূল্যে জরুরী চিকিৎসা সেবা কেন্দ্র স্থাপন, ঔষধ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন বেসরকারি একটি সংস্থা। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় কয়রা উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদে জেক্সকা ক্লিনিক ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজের প্রাক্তন ছাত্রদের আয়োজনে চিকিৎসাসেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু। এ সময় সাংসদ দেশের বিত্তবানদের সমুদ্র উপকূলবর্তী জনপদ আম্পানে লবণ পানিতে ক্ষতিগ্রস্থ কয়রার মানুষের পাশে এগিয়ে এসে চিকিৎসাসেবা সহ বিভিন্নভাবে সহযোগীতার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, শুধু আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের নয় মহামারি করোনার প্রাথমিক চিকিৎসাসেবাও দিতে প্রস্তুত এই সংগঠনটি। এর পর ঘূর্নিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত মহারাজপুর ইউনিয়নের ১০০, কয়রা সদর ১০০ ও উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নে ১০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, স্যালইন ও বিশুদ্ধ পানি বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে এমপি বাবু বলেন, খাদ্যদ্রব্য সরবারহের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের চিকিৎসাটাও জরুরী। সে জন্য যারা বিভিন্ন সাধারণ রোগে ভুগছেন তাদের জন্য যতদিন পর্যন্ত এই করোনা ও বন্যাকালিন সমস্যা থাকবে ততদিন এই চিকিৎসা দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, যে কোনো দুর্যোগ ও মহামারী পরিস্থিতিতে আওয়ামীলীগ সরকার জনগণের পাশে ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। উদ্ধোধনকালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিমুল কুমার সাহা,উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জি এম মোহসিন রেজা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কমলেশ কুমার সানা, খান সাহেব কোমরউদ্দীন মডেল কলেজের অধ্যক্ষ ড. চয়ন কুমার রায়, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ জাফর রানা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক শাহাবাজ আলী,জেলা যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন বাবু, উপাধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, জেলা যুবলীগ নেতা শামীম সরকার, মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আফি আজাদ বান্টি, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শরিফুল ইসলাম টিংকু, সাধারন সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) আমিনুল হক বাদল, সহ সভাপতি তরিকুল ইসলাম প্রমুখ। জরুরী চিকিৎসা সেবা কেন্দ্রের সার্বিক তত্ববধানে ও চিকিৎসক হিসাবে রোগীদের সেবা প্রদান করেন খুলনা শিশু হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ খান আহমেদ হিলালী। প্রথম দিনে শতাধিক মানুষের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ঔষধ প্রদান করা হয়।